শ্রমিক আন্দোলন ৫ কোটি টাকার উৎপাদন বঞ্চিত বিজেএমসি

অনলাইন ডেস্ক :

১১ দফা দাবিতে রাজপথে টানা পাঁচদিন অনশন কর্মসূচি পালনের পর শনিবার (৪ জানুয়ারি) কাজে যোগ দিয়েছেন খুলনা-যাশোর অঞ্চলের রাষ্ট্রয়াত্ত পাটকলের শ্রমিকরা। পাটমন্ত্রী গাজী গোলাম দস্তগীরের প্রতিশ্রুতিতে শ্রমিকরা ভোর ৬টা থেকে স্ব স্ব কর্মস্থলে যোগ দিয়ে মিলের উৎপাদন শুরু করেছেন।

তবে শেষ অবধি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন হবে কিনা তা নিয়ে শংকা থেকেই গেছে শ্রমিকদের মনে। বৃহস্পতিবার আন্দোলন স্থগিত করার পর শনিবার সকালে খুলনায় গেটসভাও করেছেন শ্রমিক নেতারা ।

এদিকে, শ্রমিকদের আন্দোলনের কারণে গত পাঁচদিনে মিলের চাকা বন্ধ থাকায় প্রায় ৫ কোটি টাকার উৎপাদন থেকে বঞ্চিত হয়েছে বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন। উৎপাদন অব্যাহত থাকলে রাষ্ট্রায়ত্ত ৯টি পাটকলে প্রায় পাঁচ কোটি টাকার উৎপাদন হতে পারতো।

শনিবার ঘড়ির কাঁটায় ভোর পৌনে ৬টায় এক যোগে হুইসেল বাজে খালিশপুর শিল্প এলাকার ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর, দিঘলিয়ার স্টার, আটরা এলাকার আলীম, ইস্টার্ন ও নওয়াপাড়া শিল্প এলাকার জেজেআই, কার্পেটিং জুট মিলে। বাশির শব্দ শুনে স্ব স্ব মিলের মূল ফটক দিয়ে ঢুকতে থাকেন শ্রমিকরা। মিলের মধ্যে গিয়ে নিজ কর্মস্থলে কাজ শুরু করেন তারা। এতে কর্মচাঞ্চল্যে মুখর হয়ে ওঠে গোটা শিল্পাঞ্চল এলাকা। মিলের চাকা চালু হওয়ায় শ্রমিকদের চোখে মুখে আনন্দের ছাপ দেখা যায়।

শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পাটমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতিতে তারা বুক ভরা আশা নিয়ে টানা পাঁচদিন পর কাজে ফিরলেও আতংক কাটছে না। দীর্ঘ একবছর ধরে তারা রাজপথে আন্দোলন করেছেন। শ্রমিক আন্দোলনের গতি থামিয়ে দিতে বহুবার খুলনার জেলা প্রশাসন, শ্রম ও কার্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এবং বিজেএমসির চেয়ারম্যান আশ্বাস দিয়েছেন, প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এমনকি ১১ দফা দাবি বাস্তবায়নের জন্য লিখিত চুক্তিও করেছেন। তবে এখন পর্যন্ত কোনো চুক্তি বাস্তবায়ন হয়নি।

এদিকে, ঢাকা ফার্মগেটস্থ জুট ডাইভারসিফিকেশন প্রমোশন সেন্টারে (জেডিপিসি) পাটমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির পর খুলনায় ফিরে শ্রমিক সমাবেশ করেছেন শ্রমিক নেতারা। শনিবার (৪ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিভিন্ন সময় ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপর, স্টার, আলীম, ইস্টার্ন, জেজেআই ও কার্পেটিং জুট মিল গেটে পৃথক সমাবেশ করে সিবিএ-নন সিবিএ সংগ্রাম পরিষদ।

এসব সমাবেশে বক্তব্য দেন রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ নন সিবিএ সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক আব্দুল হামিদ সরদার, যুগ্ম আহ্বায়ক মুরাদ হোসনে, সোহরাব হোসেন, সাহানা শারমিন, হুমায়ুন কবির খান, দ্বীন ইসলাম, হারুন আর রশিদ মল্লিক, সাইফুল ইসলাম লিঠু, আলাউদ্দীন, ইয়াজদানী, শ্রমিকলীগ নেতা মাও. হেমায়েত উদ্দীন আজাদী, আবু দাউদ দ্বীন মোহাম্মদ ও শেখ মো. ইব্রাহীম, সাইফুল ইসলাম লিঠু, নেতা কাওসার আলী মৃধা, খলিলুর রহমান, সেলিম আকন, সেলিম শিকদার, মনিরুল ইসলাম শিকদার, আবু হানিফ, সাহাজান সিরাজ মো. তরিকুল ইসলাম, মিজানুর রহমান ও মিন্টু মিয়া, স্টার জুট মিলের বেল্লাল মল্লিক, আব্দুল মান্নান. মাসুম গাজী, আবু হানিফ, তবিবর রহমান, আলমগীর হোসেন, সিরাজুল ইসলাম লিয়াকত হোসেন।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সাল থেকে মজুরি কমিশন বাস্তবায়নসহ ১১ দফা দাবিতে গত ২৯ ডিসেম্বর দুপুর ২টায় খুলনা-যশোর অঞ্চলের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকরা রাজপথে অনশন শুরু করেন। আন্দোলনরত শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ বৃহস্পতিবার বৈঠকে সিদ্ধান্তর পর অনশন ভঙ্গ করেন প্রায় অর্ধলাখ শ্রমিক।