আজ মঙ্গলবার ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০, ২৭শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪

শিরোনাম:
দৈনিক যুগান্তর ২৫ বছরে পদার্পণ উপক্ষে গৌরীপুরে এসএসসি ১৭ ব্যাচের মিলনমেলা দৈনিক যুগান্তর ২৫ বছরে পদার্পণ উপক্ষে গৌরীপুরে এসএসসি ১৭ ব্যাচের মিলনমেলা শবে বরাত সম্পর্কে হাদিস ও এর ফজিলত তারাকান্দায় ঘোড়ামারা খাল ভরাট করে পানি নিস্কাশনের ব্যাঘাত সৃষ্টি করা ১৩ গ্রামের দূর্ভোগ ময়মনসিংহ জেলা ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশনে মাহফুজ আহ্বায়ক সদস্য সচিব শহিদুল্লাহ! চিনির দাম বাড়ল কেজিতে ২০ টাকা তারাকান্দায় ঋন দেয়ার প্রলোভনে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়েছে প্রতারকচক্র, ম্যানজার আটক ২৫ বছরে যুগান্তর : গৌরীপুরের শিশু উৎসব জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদকে গৌরীপুরে সেরা দু’স্বজন গৌরীপুরে বিএনপির লিফলেট বিতরণ কর্মসূচিতে পুলিশের বাঁধা \ সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার-৩
বাহাদুর ডেস্ক || ওয়েব ইনচার্জ
  • প্রকাশিত সময় : ফেব্রুয়ারি, ১১, ২০২৪, ৭:৩৮ অপরাহ্ণ




প্রতি জেলায় ব্যাটালিয়ন চায় ভিডিপি

দেশের প্রতি জেলায় ব্যাটালিয়ন চায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর (ভিডিপি)। এ ছাড়া স্মার্ট আনসার গঠনে কেন্দ্রীয় ওয়্যারলেস সিস্টেমের জন্য আইসিটি ব্যাটালিয়নসহ বাহিনীতে দ্বিতীয় গ্রেডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (এডিজি) ও তৃতীয় গ্রেডের উপমহাপরিচালক (ডিডিজি) পদ সৃষ্টির দাবি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের।

এর আগে জেলাতে আনসারের পঞ্চম গ্রেডের কর্মকর্তা (পরিচালক) এবং সহকারী পরিচালক (এডি) পদ সৃষ্টির কথা জানানো হয়। পাশাপাশি বাহিনীর আবাসন ও যানবাহন সমস্যাও তুলে ধরা হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে।

একটি সূত্রে জানা যায়, এবারের সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একগুচ্ছ দাবি তুলে ধরা হবে। এর মধ্যে রয়েছে, প্রতি জেলায় আনসার ব্যাটালিয়ন গঠন, এডিজি ও ডিডিজি পদ সৃষ্টিসহ দুটি নারী ব্যাটালিয়ন এবং একটি একটি গার্ড ব্যাটালিয়ন। এ ছাড়া খিলগাঁও আনসার সদরদপ্তর ও গাজীপুর আনসার একাডেমির জন্য পৃথক সাপোর্ট ব্যাটালিয়ন চায় বাহিনীটি। সার্কেল অ্যাডজুট্যান্টদের ৯ম গ্রেড ও উপজেলা প্রশিক্ষক পদ ১২তম গ্রেডে উন্নতি করা এবং ৬০০ হিল আনসার ও ৪৩৯ জন বিশেষ আনসার সদস্যের চাকরি স্থায়ীকরণ করার দাবিও থাকছে। এছাড়া পদোন্নতি বঞ্চিত কর্মকর্তাদের পদোন্নতির বিষয়টিও উঠানো হবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে।

আনসার বাহিনীর ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, বর্তমানে ৪২টি আনসার ব্যাটালিয়ন ও একটি আনসার গার্ড ব্যাটালিয়ন রয়েছে। এর মধ্যে দুটি নারী আনসার ব্যাটালিয়নও আছে। তবে এখনও ৪১টি জেলায় কোনো আনসার ব্যাটালিয়ন নেই। আবার অনেক জেলায় একাধিক ব্যাটালিয়ন দায়িত্ব পালন করছে। সবচেয়ে বেশি আনসার ব্যাটালিয়ন দায়িত্ব পালন করছে পার্তব্য বিভাগ চট্টগ্রামে, ১৯টি। এদিকে ময়মনসিংহে কোনো ব্যাটালিয়নই নেই। এছাড়া রাজশাহী, সিলেট ও বরিশালে একটি করে, কুমিল্লা ২টি, রংপুর ৩টি, খুলনা ৪টি ও ঢাকায় ৯টি আনসার ব্যাটালিয়ন রয়েছে। এর মধ্যে দুটি নারী ও একটি গার্ড ব্যাটালিয়ন।

আনসারের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সমকালকে বলেন, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী সবচেয়ে বড় বাহিনী। এখন সময়ের প্রয়োজনে আনসার বাহিনীকে স্মার্ট করে গড়ে তোলা দরকার। এবারের সমাবেশের স্লোগান ‘স্মার্ট আনসার’ গঠন করা। বর্তমানে আনসারের কেন্দ্রীয় কোনো ওয়্যারলেস সিস্টেম নেই। ব্যাটালিয়ন ভিত্তিক থাকলেও সেটা তাদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। এ নিয়ে কোনো ব্যাটালিয়ন জরুরি পরিস্থিতিতে পড়লে তাদের উদ্ধারে সহযোগিতা চাওয়ার জন্য মোবাইল নেটওয়ার্কই ভরসা। কিন্তু পার্বত্য এলাকায় অনেক স্থানে মোবাইল নেটওয়ার্ক কাজ করে না। আর বর্তমানে পার্বত্য জেলাতে অন্য বাহিনীর ওয়্যারলেস সিস্টেম ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া অন্য যেকোনো উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলায় এই সিস্টেমসহ বাহিনীতে একটি আইসিটি ব্যাটালিয়ন গঠনের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর নজরে আনা হবে।

আনসারের দাবি, জেলা পর্যায়ে একটি পঞ্চম গ্রেডের (৬৪টি পরিচালক পদ) কর্মকর্তা পদ ও ১৬৪টি সহকারী পরিচালক পদ সৃষ্টি করা। গত সমাবেশে এই দাবির প্রতি গুরুত্ব দিয়েছিলেন বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সেটির বাস্তবায়ন হলে, পুলিশের আদলে পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদার কর্মকর্তা আনসারেও দেওয়া হবে। এসব কর্মকর্তার পদবী হবেন পরিচালক। তার অধীনে একজন উপপরিচালক (ডিডি), আর তিনজন সহকারী পরিচালক (এডি) থাকবেন। বর্তমানে জেলায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীতে একজন ডিডি ও একজন এডি দায়িত্ব পালন করছেন। শুধু ঢাকা জেলায় একজন ডিডির পরে দুজন এডি দায়িত্ব পালন করেন।

আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জাতীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এতে অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বাহিনীর দরবার সেশনে এসব বিষয়ে আলোচনা হবে বলে আনসার সদরদপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

আনসার ও ভিডিপির বিভিন্ন পর্যায়ের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা জানান, এবারের আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জাতীয় সমাবেশ অন্য যেকোনো বারের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ, দেশের উন্নয়ন ও বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যদের প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধার তুলনায় অনেক কম ও অপ্রতুল বলেও মনে করেন তারা। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে আনসার বাহিনীকে পিছিয়ে রাখার কোনো সুযোগ নেই। বাহিনীর সদস্যরা অত্যন্ত বিচক্ষণতার সঙ্গে বিভিন্ন সংস্থাসহ প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রোগ্রাম শিডিউল

আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৪৪তম জাতীয় সমাবেশ–২০২৪ এ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সকাল ১০টায় গাজীপুরের সফিপুরে আনসার একাডেমিতে অভিবাদন গ্রহণ করবেন। এরপর কুচকাওয়াজ, পদক বিতরণ ও প্রধানমন্ত্রী ভাষণ দেবেন। সকাল ১১টা ২০ মিনিটে সংঘবদ্ধ মার্চ ও কুচকাওয়াজ শেষ হবে। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও কয়েকটি ইভেন্টে অংশ নেবেন। এর মধ্যে প্রকল্পের উদ্বোধন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটা, আনসার ভিডিপি কুটিরশিল্প প্রদর্শনী পরিদর্শন ইত্যাদি। সেখানেই তিনি আনসার বাহিনীর বিভিন্ন দাবিগুলো শুনবেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল এ কে এম আমিনুল হক সমকালকে বলেন, ‘প্রত্যাশা তো অনেক কিছুই থাকে। বাহিনী সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী সবকিছুই জানেন। একটির পর একটি জিনিস দিয়েই যাচ্ছেন তিনি। এটা চলমান প্রক্রিয়া, সব প্রত্যাশাই তিনি পূরণ করবেন। সমাবেশের কয়েকটি সেশনে প্রধানমন্ত্রী অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে। সে সময় বাহিনীর দাবিগুলো প্রধানমন্ত্রীকে জানানো হবে, সেভাবেই প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এসব বিষয় ছাড়াও আরও অনেক বিষয় আছে।’

ডিজি আরও বলেন, এবার বিশেষ করে আইসিটি ব্যাটালিয়ন, এডিজি ও ডিডিজি পদ সৃষ্টিসহ বেশ কিছু বিষয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরা হবে।




Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও খবর




অনলাইন জরিপ

জাতিসংঘের বিশেষ দূত এলিস ক্রুজ বলেছেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সুফল সব মানুষের কাছে পৌঁছাচ্ছে না। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?

View Results

Loading ... Loading ...

পুরনো সংখ্যার নিউজ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯