পূর্বধলায় বিজিবি সদস্যের স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যার ঘটনায় থানায় মামলা, চিকিৎসাধীন দেবর গ্রেফতার

তিলক রায়, পূর্বধলা ঃ
পূর্বধলায় বিজিবি সদস্যের স্ত্রী লিপি আক্তার (৩৫) নামে এক নারীকে নিজ ঘরে গলাকেটে হত্যার ঘটনার একদিন পর দেবর রাসেল মিয়ার বিরুদ্ধে পূর্বধলা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।
সোমবার (৫ অক্টোবর) বিকালে নিহত লিপি আক্তারের বড় বোন ফেরদৌসি বেগম বাদী হয়ে রাসেলকে একমাত্র আসামী করে এ হত্যা মামলা দায়ের করেন।
মামলা দায়েরের পর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত রাসেলকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে এবং পুলিশ পাহাড়ায় তার চিকিৎসা চলছে।
এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পূর্বধলা থানার ওসি তাওহীদুর রহমান। মামলার বরাত দিয়ে তিনি জানান বিজিবি সদস্যের স্ত্রী গৃহবধু লিপি আক্তার কে রাসেল প্রায়শই উত্তক্ত করত। এতে সে সাড়া না দেওয়ায় পরিকল্পিতভাবে রাসেলই এ হত্যাকান্ড ঘটায়। তবে এর সাথে আরো কেউ জরিত আছে কিনা তা নিয়ে তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য গতকাল মঙ্গলবার ভোর রাতে নেত্রকোনার পূর্বধলায় লিপি আক্তার (৩৫) ও তার চাচাত দেবর রাসেল মিয়াকে (৩০) গলাকাটা অবস্থায় নিজ ঘর থেকে উদ্ধার করে বাড়ীর লোকজন। পড়ে আহত অবস্থায় দু’জনকেই পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার গৃহবধু লিপি আক্তারকে মৃত ঘোষনা করেন। অপর দিকে আহত রাসেল মিয়াক উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে।
রবিবার (৪ অক্টোবর) ভোর রাতে পূর্বধলা পশ্চিমপাড়া গ্রামের নিজবাড়ীতে এ হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে।
নিহত লিপি আক্তার উপজেলা সদরের পূর্বধলা পশ্চিমপাড়া গ্রামের বিজিবির সদস্য অজিজুল ইসলামের স্ত্রী। আর রাসেল একই বাড়ীর আলাল উদ্দিনের ছেলে ও লিপির স্বামীর চাচাত ভাই।
এ সময় বিজিবি সদস্য আজিজুল ইসলাম তার কর্মস্থল পঞ্চগড়ে অবস্থান করছিলেন এবং আলিফ নামে তাদের ১২ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।