পরাজয়ের আভাসের পর একা হয়ে পড়ছেন ট্রাম্প

বাহাদুর ডেস্ক :

রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে টপকে গিয়ে প্রেসিডেন্ট হওয়ার পথে অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। ভোটে হেরে যাওয়ার আভাস পেয়ে হোয়াইট হাউসের অনেক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ও রিপাবলিকান পার্টির নির্বাচনী প্রচার শিবিরের কয়েকজন কর্মকর্তা ট্রাম্পের কাছ থেকে দূরে সরে যেতে শুরু করেছেন।

হোয়াইট হাউস ঘনিষ্ঠদের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এই তথ্য জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়, শুক্রবার ভোটের হিসাবে পেনসিলভেনিয়া ও জর্জিয়ায় ডোনাল্ড ট্রাম্পকে টপকে যাওয়ার পর ওই কর্মকর্তারা হোয়াইট হাউস থেকে সরতে শুরু করেন। ফলে অনেকটা একা পড়ছেন ট্রাম্প।

ট্রাম্প প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ একজন উপদেষ্টা প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা নিয়ে সিএনএনকে বলেন, ‘এটা শেষ হয়ে গেছে। তবে ট্রাম্প কী করবেন, তিনি পরাজয় মেনে নেবেন কি না তা নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে।’

এই উপদেষ্টার দাবি, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হোয়াইট হাউসের সম্মেলন কক্ষে মিথ্যা বিবৃতি দিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন ট্রাম্প। এর পর ট্রাম্প প্রশাসনের অনেক কর্মকর্তা তাদের বিভাগীয় প্রধানদের কাছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পরবর্তী করণীয় নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

তবে ট্রাম্পের পরবর্তী করণীয় কী হতে পারে-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সৃষ্টিকর্তা ছাড়া আর কে জানেন!’

এছাড়া ভোটের ফল নিয়ে ট্রাম্পের লড়াইয়ের অধিকার থাকলেও যে প্রক্রিয়ায় বিষয়টি নিয়ে আগানো হচ্ছে, তা ঠিক নয় বলে মনে করেন তিনি। এ নিয়ে ট্রাম্পের প্রচার শিবিরেও প্রশ্ন উঠেছে বলে জানান তিনি।

ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারের আরেক উপদেষ্টা জানিয়েছেন, নির্বাচন ‘চুরি হয়ে যাওয়ার’ যে অভিযোগ ট্রাম্প করেছেন, সে বিষয়ে তিনি ক্রমশ একা হয়ে পড়ছেন।

এরইমধ্যে ট্রাম্পের সহযোগীদের মধ্যে কেউ কেউ ২০২৪ সালের নির্বাচন নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন বলে এক উপদেষ্টার বরাত দিয়ে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, এখনও পাঁচ রাজ্যে ঝুলছে ট্রাম্প ও বাইডেনের ভাগ্য। সার্বিক ফলাফলে বাইডেনের পালেই জয়ের মৃদু হাওয়া। পেনসিলভানিয়াতে ট্রাম্প জয়ের পথে এগিয়ে থাকলেও সময়ের সঙ্গে কমছে ব্যবধান।

অবশ্য নর্থ ক্যারোলিনায় শক্ত অবস্থান ধরে রেখেছেন তিনি। ২০১৬ সালের নির্বাচনে এ রাজ্যে পাঁচ শতাংশ ভোট বেশি পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন ট্রাম্প। ভোটের পর থেকেই ট্রাম্প দাবি করছেন, নির্বাচনের ফল তার কাছ থেকে চুরি করে নেয়া হচ্ছে।

যে পাঁচটি রাজ্যের ভোটের ফল এখনও আসার অপেক্ষায় রয়েছে তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে পেনসিলভানিয়ায়, ২০টি। এছাড়া জর্জিয়ায় ১৬, নর্থ ক্যারোলাইনায় ১৫, অ্যারিজোনায় ১১ ও নেভাডায় ৬টি ইলেকটোরাল ভোট রয়েছে।

এর মধ্যে পেনসিলভানিয়া, জর্জিয়া ও নর্থ ক্যারোলাইনায় বৃহস্পতিবার নাগাদ ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের চেয়ে এগিয়ে ছিলেন রিপাবলিকান প্রার্থী ডনাল্ড ট্রাম্প। তবে পোস্টাল ব্যালটের ওপর ভর করে শুক্রবার পাল্টে গেছে চিত্র, এখন শুধু নর্থ ক্যারোলাইনা ছাড়া সবগুলোতে এগিয়ে আছেন বাইডেন।

এখনও জয়-পরাজয়ের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলা না গেলেও এরইমধ্যে ২৫৩টি ইলেকটোরাল ভোট পক্ষে আসা বাইডেনেরই জয়ের আভাস মিলছে। শুধু পেনসিলভানিয়ায় জয় এলেও প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ২৭০টির বেশি ইলেকটোরাল ভোট চলে আসবে তার পক্ষে। সেখানে জর্জিয়া, অ্যারিজোনা ও নেভাডায়ও ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে আছেন তিনি।

টি.কে ওয়েভ-ইন