নারী শিক্ষা অফিসারকে নিয়ে ফেসবুকে অশ্লীল স্ট্যাটাস ॥ গৌরীপুরে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ ও স্মারকলিপি

বাহাদুর ডেস্ক:
ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মনিকা পারভীনকে নিয়ে ফেসবুকে অশ্লীল স্ট্যাটাস দেয়ায় সোমবার (২৮ জানুয়ারি/২০২০) জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে স্মারকলিপি ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে দেয়া স্মারকলিপি গ্রহণ করেন ইউএনও সেঁজুতি ধর।
বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি গৌরীপুর উপজেলা শাখার আহ্বায়ক মোঃ আরফান আলীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচীতে অংশ নেন প্রধান শিক্ষক মোঃ আমজাদ হোসেন খান, আম্বিয়া আক্তার মমতা, শংকর চন্দ্র চাকী, মোঃ হাবিবুল্লাহ, মোঃ আমিনুল হক, জাহানারা বেগম, মায়া রানী শীল, লতিফা আক্তার, নাসরিন বিনতে ইসলাম, মোঃ গোলাম ফারুক, মোঃ আব্দুল মান্নান, নাসির মোহাম্মদ ইসতিয়াক, জেসমিন রেখা, মোঃ আসলাম হায়দার, প্যাসিফোরা সুলতানা, খন্দকার তাসমীন নাহার, মহসীন ফেরদাউস, মির্জা মশিউর রহমান, মোঃ আইয়ুব খান, মোঃ হারুন অর রশিদ, মোঃ মফিজুর রহমান, আঞ্জুমানারা বেগম, সৈয়দা লুৎফুন নাহার বেগম, উত্তম কুমার দত্ত, আবু সাঈদ, শামীম আরা, মতিউর রহমান, আজিবুর রহমান, মোঃ আব্দুল খালেক, মোঃ নাজিম উদ্দিন, সুজলা আক্তার খাতুন, মোঃ আব্দুস সাত্তার, সুলতানা রাজিয়া, সালমা আক্তার প্রমুখ।
এদিকে নারী শিক্ষা অফিসারকে নিয়ে ফেসবুকে কুরুচিপূর্ণ ও আপত্তিকর মন্তব্য প্রচারের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া স্কুলশিক্ষক লাজুকসহ তিন আসামির রিমা- মঞ্জুর করেছে বিজ্ঞ আদালত। রোববার ময়মনসিংহ ৪নং আমলী আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মাহবুবা আক্তার মামলার শুনানি শেষে এই রিমা- মঞ্জুর করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গৌরীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম রিমা- মঞ্জুরের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, শিক্ষা অফিসারকে ফেসবুকে কটূক্তির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মামলায় গ্রেফতারকৃত ৩ আসামিকে রোববার আদালতে হাজির করে রিমা- মঞ্জুরের আবেদন করা হয়। মামলার শুনানি শেষ বিজ্ঞ বিচারক মামলার আসামি কায়েস আল কায়কোবাদ লাজুকে ৫ দিন ও তার দুই সহযোগী শামসুজ্জামান বাপ্পী, তৌহিদা আক্তার রুমা এই দুজনকে ৩ দিন পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ (রিমা-) করার আবেদন মঞ্জুর করেন।
শিক্ষা অফিস ও থানা সূত্রে জানা যায়, লাজুক উপজেলার ধুরুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। সম্প্রতি লাজুক মাস্টার উপজেলা শিক্ষা অফিসার মনিকা পারভীনের কাছে নিয়ম বর্হিভূতভাবে চারজন শিক্ষকের বদলির সুপারিশ করেন। কিন্তু শিক্ষা অফিসার এতে অস্বীকৃতি জানালে ক্ষুব্ধ হয়ে লাজুক ও তার সহযোগীরা শিক্ষা কর্মকর্তার ছবি বিকৃত করে ফেসবুকে কটূক্তি ও আপত্তিকর মন্তব্য প্রচার করেন।
এ ঘটনায় শিক্ষা কর্মকর্তা বাদী হয়ে গত সোমবার গৌরীপুর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন। ওইদিন রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে পৌর শহরের বালুয়াপাড়া থেকে লাজুক মাস্টার এবং তার সহযোগী শামসুজ্জামান বাপ্পী ও তৌহিদা আক্তার রোমাকে গ্রেফতার করেন। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২১ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করা হয়। মঙ্গলবার তাদের আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
অপরদিকে জেলা শিক্ষা অফিসার শফিউল হক বলেন, গৌরীপুর উপজেলার শিক্ষা অফিসারকে নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তি করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের দুই মামলায় সহকারী শিক্ষক কায়েস আল কায়কোবাদ লাজুককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় তাকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।