জেলা পর্যায়ে জাতীয় সংগীতে সোহাগী ইউনিয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন

মোখলেছুর রহমানঃ
ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে সোমবার (২মার্চ/২০২০) জেলা পর্যায়ে শুদ্ধসুরে জাতীয়সংগীত পরিবেশন  প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান।
জেলার বারোটা উপজেলা থেকে নির্বাচিত হয়ে আসা প্রতিষ্ঠানগুলো এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।
সকল প্রতিযোগীদের ক খ গ এই তিনটি গ্রুপে ভাগ করা হয়। ক গ্রুপে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করে ধুবাউড়া উপজেলা, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে গৌরীপুর উপজেলা এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করে ময়মনসিংহ সদর। খ গ্রুপে মাধ্যমিক শাখায় প্রতিযোগীদের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে মুক্তাগাছা উপজেলা, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে গৌরীপুর উপজেলা এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করে হালুয়াঘাট উপজেলা। এদিকে গ গ্রুপে কলেজ শাখায় হালুয়াঘাট উপজেলাকে হারিয়ে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার সোহাগী ইউনিয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রথম স্থান অধিকার করে। তৃতীয় হয় ময়মনসিংহ সদর।
উল্লেখ্য, জাতীয় শহীদদিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে জাতীয়সংগীত প্রতিযোগিতায় ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার কলেজ পর্যায়ে সোহাগী ইউনিয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রথম স্থান দখল করে। শনিবার (২২ফেব্রুয়ারি/২০২০) উপজেলা পরিষদে অনুষ্ঠিত এ প্রতিযোগিতায় প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায় মিলে প্রায় বিশটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে।
উচ্চ মাধ্যমিক বা কলেজ পর্যায়ে জাতীয় সংগীত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ঈশ্বরগঞ্জ সরকারি কলেজ, ঈশ্বরগঞ্জ গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ, সোহাগী ইউনিয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উচাখিলা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। এতে প্রথম স্থান দখল করে সোহাগী ইউনিয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। সোহাগী ইউনিয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীরা হলো তানজিনা আক্তার জ্যোতি, মারজানা আক্তার পান্না, সামিনা আক্তার, শ্রাবণী আক্তার, শ্রেয়া ধর, ক্ষমা রাণী দাশ, জান্নাতুন নূর, শ্রেয়া বণিক ও সাদিয়া রহমান অর্পি, নাদিয়া তাফলিন প্রীমা।
এ প্রতিযোগিতায় ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ আরও অনেক কর্মকর্তা  উপস্থিত ছিলেন।
জেলা পর্যায়ে প্রথম হয়ে আসা এ প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ বাবু বিশ্বজিত কুমার বণিক বলেন, জেলা পর্যায়ে প্রথম হওয়ার স্বাদ যেকোনো মানুষের জন্য অনেক আনন্দের। আমিও অনেক আনন্দিত। এবার বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম হওয়ার জন্য সার্বিক চেষ্টা করে যাবো। এ বিজয়ের জন্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিযোগী শিক্ষার্থীদের এবং সহকারী শিক্ষক রফিকুল ইসলামকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান।
বিজয়ী হয়ে আসা সকল প্রতিষ্ঠানগুলোর পুরস্কার স্ব স্ব উপজেলায় পাঠিয়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসন কর্তৃপক্ষ।
টি.কে ওয়েভ-ইন