গৌরীপুরে মাদক সম্রাট লাজুক ও তার দুই সহযোগী মাদকসহ গ্রেফতার

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি ঃ
ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে নিয়ে কুরুচিযুক্ত, আপত্তিকর, অশ্লীল ভাষায় স্টাটার্স দেয়ায় সোমবার (২০জানুয়ারি/২০২০) কুখ্যাত মাদক সম্রাট লাজুক মাস্টারসহ ৩জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ধুরুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কায়েস আল কায়কোবাদ লাজুক (৪০), তার দুই সহযোগী তৌহিদা আক্তার রুমা (৩২) ও মোঃ শামসুজ্জামান শামস বাপ্পী (২৫) মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি/২০২০) বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ বোরহান উদ্দিন।
লাজুক মাস্টারের গ্রেফতারের খবরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ও রাজনৈতিক, সামাজিক ও জনপ্রতিনিধিদের মাঝে এসেছে স্বস্তি। তার বেড়িয়ে আসছে একের পর এক অপকর্মের খবর। জনপ্রতিনিধিদের জিম্মি করে গৌরীপুর শহরে নিজে ডন দাবি করতে আসছিলো এই লাজুক মাস্টার। রাজনৈতিক সেল্টারে তার অপকর্মের বিরুদ্ধে শিক্ষা বিভাগও কোন ব্যবস্থা নিতে পারেনি। বরং শিক্ষা কর্মকর্তারাই লাজুক মাস্টারের অত্যাচার নির্যাতন থেকে বাঁচতে পালিয়ে বেড়িয়ে এমন তথ্য বেড়ি আসছে। সবশক্তিকে গুড়িয়ে দিয়ে চ্যালেঞ্জ নিলেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মনিকা পারভীন। হুমকি-অপপ্রচার, সবকিছুকে পা ঠেলে গৌরীপুরকে হাঁফ ছেড়ে বাঁচানোর শক্তি যোগালেন এই শিক্ষা কর্মকর্তা।
উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, ধুরুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কায়েস আল কায়কোবাদ লাজুক শিক্ষক বদলীর জন্য একটি প্রভাবশালী মহলের সহযোগিতায় শিক্ষক বদলির জন্য তদবির করে। নিয়ম নীতির বাহিরে এ তদবির গ্রহণ না করায় উপজেলা শিক্ষা অফিসার মনিকা পারভীনের ওপর ক্ষুব্দ হয়। শিক্ষা অফিসারকে হেয় প্রতিপন্ন করতে ছবি সংযোজন-বিয়োজন করে কুরুচিপূর্ণ, আপত্তিকর মন্তব্য ও অশালীন ছবি লাজুকের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে আপলোড করে এবং শিক্ষা কর্মকর্তা হুমকী দেয়। এ ঘটনায় উপজেলা শিক্ষা অফিসার বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় সোমবার রাতে মামলা দায়ের করেন।
গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, অফিসার ইনচার্জ মোঃ বোরহান উদ্দিনের নেতৃত্বে এসআই মোঃ নজরুল ইসলাম গভীর রাতে পৃথক অভিযান চালিয়ে ডিজিটাল ক্রাইমের মূলহোতা ধুরুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কায়েস আল কায়কোবাদ লাজুক, তার দুই সহযোগী তৌহিদা আক্তার রুমা (৩২) ও মোঃ শামসুজ্জামান শামস বাপ্পী (২৫) গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার অভিযানে সময় তাদের দেহ তল্লাশী করে ২১পিস ইয়াবা ট্যাবলেটও পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় লাজুকের বিরুদ্ধে মাদক মামলাও হয়েছে। গৌরীপুর থানার এসআই নজরুল ইসলাম জানান, ডাক্তরী পরীক্ষায় তিন জনকেই মাদকাসক্ত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। লাজুকের বিরুদ্ধে আরো ৩টি মামলা রয়েছে।
এ দিকে ধুরুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মমতাজ বেগম জানান, সহকারী শিক্ষক লাজুক গত বছরের ১৪নভেম্বর থেকে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত। এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থীদের সূত্রে জানা যায়, লাজুক মাস্টার দুই/তিন মাস পরপর এসে শুধু স্বাক্ষর দিয়ে যায়। বিদ্যালয়ে কাস নেয়নি। এ বিষয়ে সহকারী শিক্ষা অফিসার মোঃ মোজাহিদুল ইসলাম জানান, একাধিকবার তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার চেষ্টা করা হয়েছিলো, তবে তা সম্ভব হয়নি। স্থানীয় প্রভাবশালীদের মদদে একটি চক্রটি গৌরীপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসে গত বছর শিক্ষক বদলি বাণিজ্যে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। (বিস্তারিত আসছে।)