গৌরীপুরে ব্যতিক্রমী আয়োজনে ঈদে ২হাজার ৯৫৬জন পেলেন ২ কোটি ২৫লাখ ১২হাজার টাকা!

প্রধান প্রতিবেদক :
‘টাকা ছাড়া বয়স্ক-বিধবা বা প্রতিবন্ধী কার্ড পাওয়া ছিলো দুঃস্বপ্ন’ এ নিয়ে দৈনিক বাহাদুরসহ একাধিক পত্রিকায় সংবাদের শিরোনাম হয়েছে ময়মনসিংহের গৌরীপুর। ভাতাভোগীর টাকা রাস্তায় ও ব্যাংকের গেইটে জনপ্রতিনিধিদের লুটের ঘটনাও কম নয়। এক্ষেত্রে গৌরীপুর পৌরসভা ও দু’একটি ইউনিয়ন ছিলো বরাবরই অভিযোগের বাইরে। এরপরেও এবার ৮৫৪জন বয়স্কভাতায় ৫১লাখ ২৪হাজার, বিধবাভোগী ৫০৩জন ৩০লাখ ১৮হাজার টাকা, প্রতিবন্ধী সুবিধাভোগী ১হাজার ৫৯২জন পেয়েছে ১ কোটি ৪৩লাখ ২৮হাজার ও অনগ্রসরভোগী ৭জন পেলেন ৪২হাজার টাকা।

এসব ঘটনা এড়াতে এবার ব্যক্তিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন। এ দুর্নীতি ও ভাতাভোগীদের অর্থ লুটপাট ঠেকাতে ভাতাভোগীদের হাতে হাতে কার্ড পৌঁছে দিতে প্রতিটি ইউনিয়নে যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ এমপি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোফাজ্জল হোসেন খান। বিতরণ কর্মসূচী শুরু হয় সহনাটী ইউনিয়ন থেকে আর শেষ হয় ২নং গৌরীপুর ইউনিয়নের গত ২৭জুলাই। ভাতাভোগীদের মাঝে বৃহস্পতিবার (৩০জুলাই/২০২০) ভাতা অর্থ বিতরণ সম্পন্ন করে ৫টি ব্যাংক।

উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মোফাজ্জল হোসেন খান জানান, এ অর্থবছরে ২হাজার ৯৫৬জনকে দেয়া সামাজিক কর্মসূচীর আওতায় ভাতা দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে গৌরীপুর উপজেলা সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনিতে প্রতিবছর বিধবা ভাতাভোগী ৩হাজার ১৬২জন পাচ্ছেন ১ কোটি ৮৯লাখ ৭২হাজার টাকা, বয়স্কভাতা ১০হাজার ৪৮১জন পাচ্ছেন ৬ কোটি ২৮লাখ ৮৬হাজার টাকা, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৪হাজার ৮৪জন পাচ্ছেন ৩ কোটি ৬৭লাখ ৫৬হাজার টাকা, অনগ্রসরভাতা পাচ্ছেন ৩২জন পাচ্ছেন ১লাখ ৯২হাজার টাকা। বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ প্রতিবছর ৩৫৮জনে ভাতা পাচ্ছেন ৩৫৮জন পাচ্ছেন ৫ কোটি ১৫লাখ ৫২হাজার টাকা, এছাড়াও রয়েছে উৎসব ভাতাও। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ ইশতিয়াজ আহাম্মেদ জানান, ২০১৯-২০অর্থ বৎসরে গৌরীপুর পৌরসভায় বিধবা ৩৩৫জন, বয়স্কভাতা ৩৬৭জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ২২০জন। এছাড়াও উপজেলার মইলাকান্দা ইউনিয়নে বিধবা ২৯০জন, বয়স্কভাতা ৯৮২জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৪০৪জন, গৌরীপুর সদর ইউনিয়নে বিধবা ২৮৩ জন, বয়স্কভাতা ৯৫৬জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৩২২জন, অচিন্তপুর ইউনিয়নে বিধবা ২৮২জন, বয়স্কভাতা ৯৭৪জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৩৮৬জন, মাওহা ইউনিয়নে বিধবা ২৮২জন, বয়স্কভাতা ৯৪৬জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৪২৬জন, সহনাটী ইউনিয়নে বিধবা ২৮২জন, বয়স্কভাতা ৯৯৪জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৩৭০জন, বোকাইনগর ইউনিয়নে বিধবা ২৮৩জন, বয়স্কভাতা ১০৭৭জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৪৪২জন, রামগোপালপুর ইউনিয়নে বিধবা ২৮৩জন, বয়স্কভাতা ১১৮৩জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৩৫৮জন, ডৌহাখলা ইউনিয়নে বিধবা ২৮২জন, বয়স্কভাতা ১০৬৫জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ৩৩৯জন, ভাংনামারী ইউনিয়নে বিধবা ২৭৯জন, বয়স্কভাতা ৯৭৭জন, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন ২৮৪জন ও সিধলা ইউনিয়নে বিধবা ২৮১জন, বয়স্কভাতা ৯৬০জন, প্রতিবন্ধী ৩৬৬ভাতা পাচ্ছেন জন।

অপরদিকে এবারের ঈদের দেয়া ভাতা টাকাও লুটের অভিযোগ আসে বোকাইনগর ও অচিন্তপুর ইউনিয়নে। অচিন্তপুর ইউনিয়নের ৫জন প্রতিবন্ধী ও বোকাইনগর ইউনিয়নের ৪জন প্রতিবন্ধী লুটকৃত অর্থ ও ভাতাবহি উদ্ধার করে দেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ মোফাজ্জল হোসেন খান। তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা এর নেতৃত্বে বর্তমান সরকার পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী এগিয়ে নেয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন, এ কাজে যারা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে তাদের ঠিকানা হবে ‘জেলখানা’। প্রথমবারের তাদের ক্ষমা করে দেয়া হয়েছে, আর কোন অভিযোগ আসলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

টি.কে ওয়েভ-ইন