গুজব ঠেকাতে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকতে হবে : ওবায়দুল কাদের

অনলাইন ডেস্ক

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দেশের সঙ্কটময় মুহূর্তে কেউ যাতে গুজব ছড়িয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য দলের নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘দেশের সঙ্কটময় মুহূর্তে একশ্রেণির মতলবাজ গুজব ছড়িয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা চালাচ্ছে। জনগণ যাতে অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হয়, সেজন্য সচেতনতামূলক কর্মসূচি নিতে দলের নেতাকর্মীদের সর্বদা সতর্ক পাহারায় থাকতে হবে।’

ওবায়দুল কাদের শুক্রবার দুপুরে সংসদ ভবনের সরকারি বাসভবনে এক ভিডিও বার্তার মাধ্যমে এ নির্দেশনা প্রদান করেন।

জনগণকে অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘একটি বিষয় না বললেই নয়, এই সঙ্কট সন্ধিক্ষণেও একশ্রেণির মতলববাজ মহল গুজব সৃষ্টির মাধ্যমে চরিত্রহনন- ফেসবুকে অপপ্রচার করে জনমনে বিভ্রান্তি তৈরি করার অশুভ পাঁয়তারায় লিপ্ত রয়েছে। এই মতলববাজ মহলটি দেশের এই সঙ্কটেও অসভ্য খেলায় মেতে উঠেছে।’

তিনি বলেন, ‘এদের ব্যাপারে আমাদের সবাইকে সজাগ থাকতে হবে জনগণকে সতর্ক থাকতে হবে। পার্টির নেতাকর্মীদেরকে সচেতনতা কর্মসূচিতে অংশ নিতে হবে যাতে জনগণ অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হয়। আমাদের নেতাকর্মীদের সর্বদা সতর্ক পাহারায় থাকতে হবে।’

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে দলীয় নেতাকর্মীসহ দেশের সবাইকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩১ দফা অক্ষরে অক্ষরে পালন করার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী প্রশাসন সেনাবাহিনী আমাদের নেতা কর্মী জনপ্রতিনিধি ও দেশের বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ সামর্থ অনুযায়ী সবাই এগিয়ে আসছেন। চিকিৎসক-নার্সসহ আমাদের স্বাস্থ্যকর্মীরা তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করে যাচ্ছেন। দায়িত্ব পালনে কেউ কোনো অবহেলা করছেন না।

তিনি বলেন, এই সঙ্কট সন্ধিক্ষণে নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ আজ কষ্ট পাচ্ছে। একদিকে শেখ হাসিনার সরকার এদের জন্য সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে আমাদের পার্টির প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে এসেছেন- এটা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক দিক।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, করোনা সঙ্কটের কারণে সারা বিশ্ব এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে চলছে। জাতিসংঘের মতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্বে এমন ভয়াবহ সঙ্কট কখনো সৃষ্টি হয়নি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, কবে যে এই সঙ্কটের শেষ হবে তা এখনো পর্যন্ত কেউ সঠিকভাবে বলতে পারছেন না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশে দেশে সঙ্কট আরো ঘনীভূত হচ্ছে। বাংলাদেশে আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করে যাচ্ছি অত্যন্ত ধৈর্য ও সাহসিকতার সাথে। সঙ্কট মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সরকার সময়োচিত যথাযথ দায়িত্ব নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করে যাচ্ছে।

এর আগে ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির উদ্যোগে বিভিন্ন হাসপাতাল ও সামাজিক সংগঠনের মাঝে করোনা প্রতিরোধে উপকরণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়। ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী এসব কার্যক্রম পরিচালনা করেন।

এ সময়ে আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।বাসস