কলমাকান্দায় বন্যার পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি, কমেনি দুর্ভোগ

বাহাদুর ডেস্ক :

নেত্রকোণার কলমাকান্দায় বৃষ্টি কম হওয়ায় এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানির চাপ কম থাকায় বন্যার পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে প্লাবিত এলাকার মানুষের দুর্ভোগ কমেনি।

ঘরবাড়ির চারপাশে এখনও পানি থাকায় কলমাকান্দা সদরসহ ৩৫টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে আছেন। বন্যার কারণে কলমাকান্দা সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫৬ পরিবারের ১১৬ জন ও কলমাকান্দা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে ৪ পরিবারের ১২ জন আশ্রয় নিয়েছেন।

ভেঙে পড়েছে উপজেলা সদরের সঙ্গে অভ্যন্তরীণ যোগযোগ ব্যবস্থা। এদিকে নেত্রকোণা জেলার সঙ্গে কলমাকান্দা সড়কে যান চলাচল পুরোপুরি চালু হয়নি। বন্যার পানিতে উপজেলার রাস্তাগুলোতে খানা-খন্দ, ছোট-বড় গর্ত ও ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে।

টানা তিনবারের বন্যায় উপজেলার ৩২০ একর আমন এবং ৫১০ একর আউশ ধানের জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। এছাড়া প্রায় দুই হাজার ৫০০ পুকুর পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় মাছ বেরিয়ে গেছে।

নেত্রকোনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) পানি পরিমাপক (গেজ রিডার) মো. মোবারক হোসেন জানান, কলমাকান্দার উব্দাখালী নদীর পানি ধীরগতিতে কমে বিপদসীমার ২৭ সে.মি. নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ( ইউএনও) মো. সোহেল রানা সমকালকে জানান, বন্যার পরিস্থিতি মোকাবিলায় উপজেলা প্রশাসনের সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও জানান, এ প্রাকৃতিক দুর্যোগে ১১০ মে. টন জিআর চাল ও ৪ শ’ শুকনো খাবার প্যাকেট এবং নগদ ৪ লক্ষ টাকা জেলা প্রশাসন থেকে আমরা বরাদ্দ পেয়েছি। যা পর্যায়ক্রমে বিতরণ করা হচ্ছে।

টি.কে ওয়েভ-ইন