ইজতেমা ঘিরে ডিএমপির পথনির্দেশনা

বাহাদুর ডেস্ক :

ঢাকার অদূরে গাজীপুরের টঙ্গীতে তাবলিগ জামাতের বার্ষিক সম্মেলন বিশ্ব ইজতেমার তিন দিনের প্রথম পর্ব শুরু হচ্ছে শুক্রবার। এর পাঁচ দিন পর ১৭ জানুয়ারি শুরু হবে ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব।

ইজতেমায় অংশ নিতে আসা দেশি-বিদেশি লাখ লাখ মানুষের যাতায়াত সুশৃঙ্খল রাখতে রাজধানীসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় গাড়ির পার্কিং ও যান চলাচল বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

নিদের্শনায় যানবাহন পার্কিংয়ের বিভাগভিত্তিক ব্যবস্থার কথা জানানো হয়েছে।

ঢাকা বিভাগ: সোনারগাঁও জনপথ চৌরাস্তা থেকে দিয়াবাড়ি খালপাড় পর্যন্ত।

রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগ: প্রত্যাশা হাউজিং।

চট্টগাম বিভাগ: গাউসুল আজম অ্যাভিনিউ (১৩ নম্বর সেক্টর রোডের পূর্বপ্রান্ত থেকে পশ্চিমপ্রান্ত হয়ে গরিবে নেওয়াজ রোড)।

সিলেট বিভাগ: উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টর খালপাড় থেকে দিয়াবাড়ি গোলচত্বর পর্যন্ত।

খুলনা বিভাগ: উত্তরা ১৭ ও ১৮ নম্বর সেক্টরের খালি জায়গা (প্রধান সড়কসহ)।

বরিশাল বিভাগ: ধউর ব্রিজ ক্রসিংসংলগ্ন বিআইডব্লিউটিএ ল্যান্ডিং স্টেশন।

এ ছাড়া ঢাকা মহানগরের যানবাহন উত্তরার শাহজালাল অ্যাভিনিউ, নিকুঞ্জ-১ ও নিকুঞ্জ-২ এর আশপাশের খালি জায়গায় পার্কিং করতে হবে।

ডিএমপি বলেছে, যানবাহন পার্কিংয়ের চালক-হেলপারকে গাড়িতে থাকতে হবে। মালিক ও চালক পরস্পরের মোবাইল নম্বর নিয়ে রাখবেন, যাতে বিশেষ প্রয়োজনে তাৎক্ষণিকভাবে যোগাযোগ করা যায়।

ইজতেমার দুই পর্বের আখেরি মোনাজাতের দিন ভোর ৪টা থেকে বিমানবন্দর সড়ক দিয়ে চলাচলকারী যানবাহনগুলোকে মহাখালী ক্রসিং, হোটেল রেডিসন গ্যাপ, প্রগতি সরণি, কুড়িল ফ্লাইওভারের নিচের লুপ-২, ধউর ব্রিজ ও বেড়িবাঁধসংলগ্ন উত্তরা ১৮ নম্বর সেক্টরের প্রবেশ মুখ থেকে বিকল্প সড়ক ব্যবহার করতে বলা হয়েছে।

বিকল্প চলাচলের জন্য পথনির্দেশ:

আশুলিয়া থেকে আব্দুল্লাহপুরগামী যানবাহনগুলো আব্দুল্লাহপুর না এসে ধউর ব্রিজ ক্রসিং থেকে ডানে মোড় নিয়ে মিরপুর বেড়িবাঁধ দিয়ে চলাচল করবে।

মহাখালী বাস টার্মিনাল থেকে আব্দুল্লাহপুরগামী আন্তঃজেলা বাস, ট্রাক, কাভার্ডভ্যানসহ সব যানবাহন মহাখালী ক্রসিং থেকে বামে মোড় নিয়ে বিজয় সরণি-গাবতলী হয়ে চলাচল করবে।

কাকলী, মিরপুর থেকে উত্তরাগামী বড় বাস, ট্রাক, কাভার্ডভ্যানগুলোকে হোটেল রেডিসন গ্যাপ থেকে বিকল্প সড়ক ব্যবহার করতে হবে।

কাকলী ও মিরপুর থেকে উত্তরাগামী প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, অটোরিকশাগুলোকে নিকুঞ্জ-১ নম্বর গেটের সামনে থেকে বিকল্প সড়ক ব্যবহার করতে হবে।

প্রগতি সরণি থেকে আব্দুল্লাহপুরগামী যানবাহনগুলো কুড়িল ফ্লাইওভারের নিচে লুপ-২ থেকে বিকল্প সড়ক ব্যবহার করবে।

শুধু বিমান অপারেশনস ও বিমান ক্রু বহনকারী যানবাহন, ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্স বিমানবন্দর সড়ক ব্যবহার পারবে।

এ ছাড়া সব যানবাহনের চালককে বিমানবন্দর সড়কের বিকল্প হিসেবে মহাখালী, বিজয় সরণি হয়ে মিরপুর-গাবতলী সড়ক ব্যবহার করতে বলা হয়েছে।

আখেরি মোনাজাতের দুদিন ভোর ৪টা থেকে বিদেশগামী বা বিদেশফেরত যাত্রীদের নিকুঞ্জ-১ গেট থেকে বিমানবন্দরে আনা-নেয়ার জন্য ট্রাফিক উত্তর বিভাগের ব্যবস্থাপনায় দুটি মিনিবাস ও দুটি মাইক্রোবাস বিনামূল্যে পরিবহন সেবা দেবে।

ট্রাফিক সম্পর্কিত যে কোনো তথ্যের জন্য ০১৭১৩৩৯৮৪৯৮ (সহকারী পুলিশ কমিশনার, উত্তরা ট্রাফিক জোন), ০১৭১৩৩৯৮৬৭৯ (সহকারী পুলিশ কমিশনার, এয়ারপোর্ট ট্রাফিক জোন) ও ০১৭১৭৬৬৮১১৮ (টিআই, উত্তরা ট্রাফিক জোন, সিদ্দিক-উর রহমান ভূঞা) নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

টি.কে ওয়েভ-ইন